সংবাদ শিরোনাম
Home / বিশেষ সংবাদ / অপরাধ ও দুর্ভোগ / ওসি’র তাৎক্ষণিক তৎপরতায়  বানিয়াচংয়ে সাজা পেলো ইউপি সদস্য সহ ১০ দাঙ্গাবাজ

ওসি’র তাৎক্ষণিক তৎপরতায়  বানিয়াচংয়ে সাজা পেলো ইউপি সদস্য সহ ১০ দাঙ্গাবাজ

একেএম সীমান্ত, দিশারী নিউজঃ
হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচংয়ে দুই মেম্বারের আধিপত্যকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় মহিলা শিশুসহ প্রায় ২৫ জন আহত হয়েছে। বানিয়াচং থানার ওসি রাশেদ মোবারকের তাৎক্ষণিক তৎপরতায় সংঘর্ষ দ্রুত  নিয়ন্ত্রণে এনে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ ১০ দাঙ্গাবাজকে ভ্রামম্যান আদালতে সোপর্দ করা হয়। আদালত দোষীদের সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠায়।
১৪ অক্টোবর রবিবার সকাল ১১ টা নাগাদ ২নং উত্তর পশ্চিম ইউনিয়নের মিনাট গ্রামে ঘন্টাব্যাপী চলা ওই সংঘর্ষে সাজেদা, মিয়া হোসেন, ৩ মাসের শিশু রাকিবা, অরুনা, মাহমুদা বিবি, এশা বিবি, শিবলু মিয়া, তুলনা বেগম সহ আরো অনেকে আহত হয়। এর মধ্যে শিশু রাকিবাকে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট প্রেরন করা হয়। অন্যান্যদের উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বর্তমান ইউপি সদস্য ইনছাব আলী ও সাবেক ইউপি সদস্য হাফিজ মিয়ার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই বিরোধ চলে আসছিলো। সম্প্রতি মিনাট গ্রামের আজিজুল এর দোকানে আগুন দেয়া এবং তার পুকুরে বিষ ঢেলে মাছ মেরে ফেলাকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। এর জের ধরেই রবিবার সকালে দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে দু’পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষের খবর পেয়ে বানিয়াচং থানার নবাগত অফিসার ইনচার্জ মোঃ রাশেদ মোবারক এর নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ সময় মিনাট গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান দেশীয় অস্ত্র উদ্ধারসহ সংঘর্ষে জড়িত থাকার দায়ে দেশীয় অস্ত্রসহ ১০জনকে আটক করে। ঐদিনই দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে আটকৃত দাঙ্গাবাজদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করা হয়। সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ছাব্বির আহমেদ আকুঞ্জি এ সাজা প্রদান করেন। বর্তমান ইউপি সদস্য ইনছাব আলী ও সাবেক ইউপি সদস্য হাফিজ মিয়াকে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড এবং নুরুল হক, সাদ্দাম হোসেন, আঃ বারিক, মন্নান মিয়া, কাজল মিয়া ও জুয়েল মিয়াকে ১৫ দিনের কারাদন্ড দেয় ভ্রাম্যমান আদালত। এছাড়া নাঈম খান এবং শিশু মিয়াকে ১ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড প্রদান করে ছেড়ে দেয়া হয়।
এ বিষয়ে ওসি রাশেদ মোবারক দিশারী নিউজকে বলেন, “দাঙ্গা দমনে বানিয়াচং থানার পুলিশ জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করছে। মিনাট গ্রামের হাফিজ উদ্দিন ও ইনছাব আলীকে গত ২ দিন আগেও দাঙ্গার প্রস্তুতির সময় আটক করা হয়। পরে দাঙ্গায় না জড়ানোর লিখিত মুচলেকায় ছেড়ে দেয়া হয়। কিন্তু তার পরেও তারা সংঘর্ষে জড়ায়। খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল থেকে দুই পক্ষের সর্দারসহ ১০ জনকে আটক করি। পরে তাদেরকে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করলে আদালত তাদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করেন। পরিস্থিতি বিবেচনায় ঘটনাস্থলে পুলিশের টহল অব্যাহত আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*