সংবাদ শিরোনাম
Home / রাজনীতি / বেকারত্ব আর মাদক নির্মূলে নৌকার মনোনয়ন চান সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ

বেকারত্ব আর মাদক নির্মূলে নৌকার মনোনয়ন চান সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ

একেএম সীমান্তঃ
কিশোরগঞ্জ ২ (কটিয়াদি -পাকুন্দিয়া) আসন থেকে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে লড়তে তরুন ভোটারদের প্রথম পছন্দ এলাকার কৃতি সন্তান, বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ। এই আসনের প্রধান সমস্যা বেকারত্ব আর মাদক। তরুনদের বেশিরভাগই শিক্ষিত বেকার। পর্যাপ্ত কর্মসংস্থানের অভাবে হতাশায় শিক্ষিত বেকারদের একটা বিরাট অংশ হয়ে পড়ছে মাদক নির্ভর। আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা মার্কা নিয়ে ভোটের লড়াইয়ে বিপুল ভোটে নিশ্চিত জয়লাভ করবেন বলে জানান সাবেক এই আইজিপি। আর নির্বাচিত হলে কটিয়াদি-পাকুন্দিয়ার বেকারত্ব আর মাদক নিয়ন্ত্রণ ই তাঁর প্রধান লক্ষ্য। গত ১০ বছরে সারাদেশের তুলনায় এই এলাকার উন্নয়ন যৎসামান্য বলে মনে করেন তিনি। কটিয়াদির ৭৫ কিলোমিটার রাস্তার মধ্যে ৫০ কিলোমিটার এখনো কাঁচা। অন্যদিকে পাকুন্দিয়ারও একই অবস্থা। ৭০ কিলোমিটার রাস্তার মাত্র ২০ কিলোমিটার পাকা হয়েছে।  ১৭.৫০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের কটিয়াদির মোট জনসংখ্যা ৫০,৮০০ জন প্রায়। এর মধ্যে মোট ভোটার ২৩,৬০০ জন। অপরদিকে ১৩.৩৩ বর্গকিলোমিটার আয়তন নিয়ে ২০০৭ এ নবগঠিত পৌরসভা পাকুন্দিয়ার মোট জনসংখ্যা ২৮৭৭৩ জন। ২ পৌরসভার জনগনের স্বাস্থ্য খাতেও রয়েছে ব্যাপক ঘাটতি। কটিয়াদিতে ৬ টি স্যাটেলাইট ক্লিনিক থাকলেও পাকুন্দিয়ার প্রায় ৩০,০০০ মানুষের জন্য রয়েছে একটি মাত্র সরকারি হাসপাতাল। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যাও বাড়াতে হবে। বর্তমানে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা কটিয়াদিতে ১০টি ও পাকুন্দিয়ায় ৯ টি।
নিজ জন্মস্থান কটিয়াদি থেকেই স্কুল ও কলেজ জীবন শেষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮০ সালে ইতিহাসে এম.এ. সম্পন্ন করে ১৯৮২ ব্যাচের বিসিএস এ পুলিশ ক্যাডারে এএসপি পদে চাকুরি তে যোগদান করেন নূর মোহাম্মদ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন কালীন ছাত্রলীগের হয়ে ডাকসু নির্বাচনে মহসীন হল ছাত্র সংসদের নির্বাচিত ভিপি হিসেবে ছাত্র সংসদের নেতৃত্ব দেন। পুলিশে থাকাকালীন জাতিসংঘ মিশনে কসোভোতে দায়িত্ব পালন করেন। পুলিশ বাহিনীতে দীর্ঘ ৩২ বছরের চাকুরি জীবনে তিনি ডিআইজি ও সর্বোচ্চ পুলিশ প্রধান( আইজিপি) হিসেবে দক্ষতার সাথে দায়িত্ব (২০০৭-২০১০) পালন শেষে অবসর গ্রহণ করেন। অবসর গ্রহনের পরেও বাংলাদেশ সরকারের একান্ত আস্থাভাজন হিসেবে মরোক্কোতে (২০১১) বাংলাদেশ সরকারের এ্যাম্বাসডরের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া বাংলাদেশ সরকারের যুব ও ক্রীড়া সচিব (২০১২) হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন চৌকষ ও তারুন্যনির্ভর সদাহাস্যময় এই মানুষটি।
প্রশাসনের প্রভাবশালী পদে দায়িত্বে থাকার সুবাদে এলাকার মানুষের সকল ধরনের আবদার অনুরোধ যথাসম্ভব রক্ষা করার চেষ্টা করেছেন। তাঁর সেই সময়ের অবদান বৃথা যায়নি। কটিয়াদি-পাকুন্দিয়ার জনগণ বিশেষ করে তরুন যুবারা মনে করেন নূর মোহাম্মদের মতো মেধাবী, দক্ষ ও সহযোগিতাপূর্ণ মনোভাবের মানুষ যদি এই আসনে নেতৃ্ত্ব দেয়, তাহলে এলাকায় ব্যাপক কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। যে কোন বিপদে বা সমস্যায় তাঁর কাছে ছুটে যাওয়া যাবে, যেভাবে অতীতে গিয়েছি। তাই আমরা কটিয়াদি-পাকুন্দিয়া আসনে নূর মোহাম্মদকে আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী হিসেবে পেতে চাই।
আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন লাভে তুমুল আশাবাদি নূর মোহাম্মদ বলেন, “আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন। মনোনয়ন পেলে নির্বাচনে জয়লাভ করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নের ধারা আরো বেগবান করতে তিনি তাঁর অভিজ্ঞতা ও দেশের মানুষের প্রতি ভালোবাসা থেকেই জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একযোগে কাজ করে যাবেন। দেশের মানুষের জন্য এখনো অনেক কিছু করার আছে বলে মনে করেন তিনি। এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের এ্যাডভোকেট সোহরাব উদ্দিনও রয়েছেন নৌকার মনোনয়ন দৌড়ে। অন্যদিকে ২৩ দলীয় জোটের বিএনপি থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হতে মাঠে নেমেছেন বর্ষীয়ান নেতা মেজর আক্তারুজ্জামান। বঙ্গবন্ধুকে ব্যাপক শ্রদ্ধা ও সন্মান প্রদর্শন করা মেজর আক্তারুজ্জামনও তরুন ও তৃণমূল আওয়ামী লীগে বেশ জনপ্রিয়। ফলে ভোটের লড়াইটা খুব একটা সহজ হবেনা। এখন সময়ই বলে দিবে কে পেতে যাচ্ছেন কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি-পাকুন্দিয়ার মানুষের আগামীর নেতৃত্ব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*